Saturday, January 28, 2017

সমাজবিজ্ঞান বিভাগের নবীনরা যেসব প্রাথমিক বই পড়তে পারেন!

সম্প্রতি সমাজবিজ্ঞান বিভাগে একঝাঁক নবীনের আগমন ঘটেছে। সমাজবিজ্ঞানকে ভালভাবে জানতে ও বুঝতে চাইলে বই পড়ার বিকল্প নাই। সমাজবিজ্ঞান বিভাগের নবীন ছাত্রছাত্রীদের জন্য প্রাথমিক একটা বইয়ের লিস্ট দেয়া হল। আশা করা যায়, বইগুলো পড়লে দীর্ঘমেয়াদে নানাভাবে উপকৃত হওয়া যাবে।

১) সোশিওলজি
লেখক: এন্থনি গিডেন্স

সমাজবিজ্ঞানের ইন্ট্রোডাক্টোরি পর্যায়ের বাইবেল এটি। প্রথম বর্ষের সব স্টুডেন্টের জন্য একদম সহজ ইংরেজি টেক্সটের এই বইটি সম্পূর্ণ পড়া বাধ্যতামূলক। ইংরেজী বুঝতে সমস্যা হলে পাশে এর বাংলা অনুবাদ ভার্সন রেখে হলেও পড়তে হবে।

২) সমাজবিজ্ঞান সমীক্ষণ
লেখক: অধ্যাপক নাজমুল করিম, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাবি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক নাজমুল করিম স্যারের লেখা বই। ইন্ট্রোডাক্টোরি পর্যায়ের অন্যতম সেরা বই। জুনিয়রদের অবশ্যই পড়া উচিত।

৩) সমাজবিজ্ঞান পরিচিতি
লেখক: অধ্যাপক হাবিবুর রহমান, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাবি।

বাংলা ভাষায় সমাজবিজ্ঞানের ইন্ট্রোডাক্টোরি পর্যায়ের প্রাথমিক লেভেলের আরও একটি বই। এটিও রিডিং পড়লে উপকৃত হওয়া যাবে।

৪) সমাজবিজ্ঞান শব্দকোষ
লেখক: প্রফেসর আনোয়ারুল্লাহ চৌধুরী, ঢাবি।

সমাজবিজ্ঞানের গুরুত্বপূর্ণ কনসেপ্টসমূহ সম্পর্কে সংক্ষেপে বুঝতে বইটি সাহায্য করবে।

৫) পরিবর্তনশীল সমাজ: ভারত, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ
লেখক: অধ্যাপক নাজমুল করিম, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাবি।

উপমহাদেশ তথা বাংলাদেশের সমাজ বুঝতে চাইলে বইটি পড়ার কোন বিকল্প নাই।

৬) সোফির জগৎ
মূল লেখক: ইয়স্তাইন গার্ডার
অনুবাদ: জি এইচ হাবীব

সমাজবিজ্ঞান তথা বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের জীবনের শুরুতেই প্রতিটি স্টুডেন্টের এই বইটি পড়া উচিত। অত্যন্ত সহজ ভাষায় লিখিত সুপাঠ্য এই বইটি মূলত মানুষের তিন হাজার বছরের চিন্তা তথা দর্শনের ইতিহাস নির্ভর থ্রিলার উপন্যাস। বইটিতে সক্রেটিস, প্লেটো, এরিস্টেটল থেকে শুরু করে কান্ট, হেগেল, মার্ক্স, ফ্রয়েড, ডারউইন.... এবং হালের ক্রেজ স্টিফেন হকিংস পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য দার্শিনিকদের চিন্তার মেইন থিম গল্পের আকারে বিবৃত হয়েছে। দর্শন হচ্ছে সকল জ্ঞানের মা বা রুট। তাই দর্শন বা দর্শনের ইতিহাস না জানলে শুধু সমাজবিজ্ঞান কেন কলা/সামাজিক বিজ্ঞানের যেকোন শাখাই ভালভাবে উপলব্ধি অপূর্ণাঙ্গ থাকবে।

৭) হাজার বছরের বাঙালি সংস্কৃতি
লেখক: গোলাম মুরশিদ

বাংলা ভাষা ও বাঙালি জাতির বয়স প্রায় এক হাজার বছর। এই এক হাজার বছরের ইতিহাস লিপিবদ্ধ হয়েছে বইটিতে। আর এই ইতিহাস শুধুমাত্র রাজা-বাদশাদের কাহিনী বা রাজনৈতিক ইতিহাস না, বইটিতে বাঙালি জাতীর উৎপত্তি, বিকাশ, ভাষা, কৃষ্টিকালচার, পোষাক, খ্যাদ্যভ্যাস, শিল্পকলা, সাহিত্য, নাটক, সঙ্গীত ইত্যাদি এক কথায় বাঙালি জাতীর সামাজিক ইতিহাস চমৎকার ভাবে বর্ণিত হয়েছে। এই বইটি এজন্য পড়া জরুরি যে বাঙালি সংস্কৃতি বা বাঙালির ইতিহাস সম্পর্কে ধারনা না থাকলে সমাজবিজ্ঞানের সাথে বাংলাদেশের সমাজকে রিলেট করা যাবেনা।

৮) লাল নীল দীপাবলি (বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস)
লেখক: হূমায়ুন আজাদ, বাংলা বিভাগ, ঢাবি।

সাহিত্য মানে হচ্ছে সমাজের মানুষের তথা সামাজিক ইতিহাস। একমাত্র সাহিত্যেই সমাজের উঁচুনিচু সব শ্রেনীর মানুষের কথা অসাধারনভাবে ফুটে ওঠে। মাত্র ১০০ পৃষ্ঠার এই বইটি সমাজবিজ্ঞান বুঝতে ও বিসিএসে ভাল করতেও অনেক কাজে লাগবে।

৯) ইংরেজি সাহিত্যের ইতিহাস
লেখক: সাবিদিন ইব্রাহিম, ঢাবি।

ইংরেজী সাহিত্যের ইতিহাস মানে বিশ্বের বড় একটা অংশের মানুষের চিন্তাভাবনার ইতিহাস। বাংলা ভাষায় রচিত সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত ও সহজ ভাষায় লিখিত মাত্র ১০০ পৃষ্টার এই বইটি পড়লে দোজাহানের (জ্ঞান ও বিসিএস) অশেষ কল্যান হাসিল হবে। ;)

১০) পৃথিবীর ইতিহাস
লেখক: জওহরলাল নেহেরু, ইন্ডিয়া।

ইন্ডিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু তার দশ বছর বয়সী কন্যা ইন্দ্রিরা গান্ধীকে চিঠির মাধ্যমে পৃথিবীর ইতিহাস শিখিয়েছেন। মাত্র ১০০ পৃষ্ঠার এই বইটি পড়লে আপনি একেবারে পৃথিবীর শুরু অর্থাৎ প্রানের উৎপত্তি থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সবকিছু সম্পর্কে একটা স্বচ্ছ ধারনা পাবেন।

১১) ভোলগা থেকে গংঙ্গা
লেখক: রাহুল সাংকৃত্যায়ন, ইন্ডিয়া।

গল্পের আবরণে লেখক বইটিতে প্রাচীন আমল থেকে বিংশ শতাব্দী পর্যন্ত আর্যদের সমাজ বিকাশ এবং পথপরিক্রমার ইতিহাস লিখেছেন। বইটিতে মোট ২০টি ছোট গল্প রয়েছে। প্রতিটি গল্প সমাজ বিকাশের একেকটি ধাপ। বইটি শুরু হয়েছে ৬০০০ খৃষ্টপূর্বাব্দে ভোলগা নদীর তীরে যে মানবগোষ্ঠী পরিবার স্থাপন করেছিলো, তাদেরই আবাস ও জীবন নিয়ে এবং শেষ হয়েছে ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্টের দেশ বিভাগের কাহিনীর মধ্য দিয়ে।

বিদ্র: সবগুলো বইই rokomari.com এ অর্ডার করলে হল/বাসায় পৌছে দেবে। বই হাতে পেয়ে মূল্য পরিশোধ করতে হবে। এছাড়া মিঞা শোভনের বই বিক্রি কার্যক্রম "দেউলিয়া"তে অর্ডার করলেও সংশ্লিষ্ট বই ক্যাম্পাসে ডেলিভারি দিয়ে যাবে।  এছাড়া অনলাইনে খোঁজাখুঁজি করলে কিছু বইয়ের সফটকপিও অনলাইনে ফ্রি পাওয়া যেতে পারে।

#সমাজবিজ্ঞান
#পড়াশুনা
#বুকলিস্ট

No comments:

Post a Comment